স্প্যানিশ লীগের ম্যাচে জয় পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। ঘরের মাঠ আলফ্রেডো ডি স্টেফানো স্টেডিয়ামে রিয়াল মায়োর্কাকে ২-০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে লস ব্ল্যাংসকরা। এই জয়ে একদিন পর বার্সেলোনাকে টপকে আবারও শীর্ষে ফিরলো জিনেদিন জিদানের দল।

গতকাল এথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষের কষ্টার্জিত জয়ে কোন রকমে শীর্ষস্থান দখল করেছিলো বার্সেলোনা। একদিনের ব্যবধানেই তাদেরকে পেছনে ফেলে আবারও শীর্ষস্থান দখল করলো স্পেনের ফুটবলের অন্যতম সেরা এই দল।

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে ম্যাচের শুরু থেকেই জমে ওঠে ম্যাচ। সপ্তম মিনিটে কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে দারুণ দুটি সুযোগ পায় রিয়াল। বাম দিক থেকে আসা ক্রস বুক দিয়ে নামিয়ে করিম বেনজেমার নেওয়া শট ঝাঁপিয়ে ফেরান গোলরক্ষক। ফিরতি বল সতীর্থের পা ঘুরে পেয়ে যান চার মাসের বেশি সময় পর একাদশে ফেরা বেল। তার দূরপাল্লার বুলেট গতির শটও ফিরিয়ে দেন রেইনা।

এর মাত্র তিন মিনিট পর থিবো কোর্তোয়ার দারুণ নৈপুণ্যে রিয়ালের জাল অক্ষত থাকে। ঘানার মিডফিল্ডার ইদ্রিসু বাবার দূর থেকে নেওয়া জোরালো শট ঝাঁপিয়ে পড়া গোলরক্ষকের আঙুলের ছোঁয়ায় পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়।

ষষ্ঠদশ মিনিটে ভালো জায়গায় বল পেয়ে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন ভিনিসিউস। তিন মিনিট পর আর ব্যর্থ হননি তরুণ ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। লুকা মদ্রিচের পাস ধরে ডি-বক্সে ঢুকে গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন তিনি।

২৪তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করতে পারতেন ভিনিসিউস। বেনজেমার পাস ধরে দ্রুত ডি-বক্সে ঢুকে গোলরক্ষককে একা পেয়েছিলেন তিনি, কিন্তু তার চিপ শট রেইনাকে ফাঁকি দিলেও ক্রসবার এড়াতে পারেনি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেও ১৯ বছর বয়সী ভিনিসিউস ছিলেন স্বরূপে। ৫১তম মিনিটে তার দারুণ পাস পেয়ে গোলরক্ষক বরাবর শট নিয়ে হতাশ করেন বেনজেমা।

পাঁচ মিনিট পর রামোসের দুর্দান্ত ফ্রি-কিকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় রিয়াল। অধিনায়কের ডান পায়ের অসাধারণ ফ্রি-কিকে বল বাঁ পোস্টের ওপরের কোনা দিয়ে জালে জড়ায়। জায়গা থেকে নড়ার সুযোগ পাননি গোলরক্ষক রেইনা। ৫২৮ দিন পর ফ্রি-কিকে গোল করল রিয়াল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here